বিসিএস লিখিত প্রস্তুতিঃ বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক

টিপস
Content Protection by DMCA.com

বিসিএস লিখিত প্রস্তুতিঃ বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক
মূল লেখাঃ জুয়েল রানা
৩৮ তম বিসিএস (আনসার), মেধাতালিকায় প্রথম

বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলির প্রস্তুতি:

সামনে ৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা। আগামী তিন মাসের প্রস্তুতির ছক সাজিয়ে পড়াশোনা শুরু করে দিন এখনই। প্রার্থীদের প্রস্তুতি এগিয়ে নিতে আমাদের বিষয়ভিত্তিক প্রস্তুতি আয়োজনের এবারের পর্বে থাকছে বাংলাদেশ (২০০ নম্বর) ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি (২০০)। এসব বিষয়ে দরকারি নির্দেশনা ও পরামর্শ দিয়েছেন ৩৮তম বিসিএস (আনসার, মেধাক্রমে প্রথম) ক্যাডার মো. জুয়েল রানা।

বাংলাদেশ বিষয়াবলীঃ

লিখিত পরীক্ষায় বাংলাদেশ বিষয়াবলির থাকছে ২০০ নম্বর। এ অংশে একটু কৌশলী হলেই ভালো নম্বর ওঠানো সম্ভব। Jeff Howe তাঁর Whiplash : How to Survive Our Faster Future বইয়ে লিখেছেন, ‘ক্রমবর্ধমান অনিশ্চয়তার পৃথিবী দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। এ ক্ষেত্রে একটি বিশদ মানচিত্র আপনাকে অহেতুক অরণ্যের গভীরে নিয়ে যেতে পারে। কিন্তু একটি ভালো কম্পাস আপনাকে সর্বদা প্রয়োজনের জায়গায়ই নিয়ে যাবে।’ ‘ভালো কম্পাস’ বলতে পরিকল্পনা ও কৌশলকেই বোঝানো হয়েছে।

এখানে ‘বাংলাদেশ বিষয়াবলি’কে তিনটি ভাগে ভাগ করে আলোচনা করব, যা বেশি নম্বর পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রার্থীদের সহায়ক হবে বলে আশা করছি।

* কৌশলগত বিষয়
* কী কী পড়বেন
* সহায়ক বই ও অন্যান্য।

কৌশলগত বিষয়:

* আপনাকে চার ঘণ্টায় (২৪০ মিনিটে) ২০০ নম্বরের উত্তর লিখতে হবে। অর্থাৎ প্রতি ১ নম্বরের জন্য ১.২ মিনিট বরাদ্দ। তাহলে ৫ নম্বরের একটি প্রশ্নে ৬ মিনিট সময় হাতে পাবেন, এর বেশি সময় নেওয়া যাবে না।

* বিপিএসসি প্রদত্ত সিলেবাসের সব বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা রাখবেন এবং (৩৫-৪০) বিসিএসের লিখিত প্রশ্নগুলো দেখবেন। প্রশ্নপত্র সম্পর্কে আপনার একটা ভালো ধারণা তৈরি হবে।

* কোনো প্রশ্ন ছেড়ে আসবেন না, সবগুলোর উত্তর করবেন। দ্রুতগতিতে লেখার অভ্যাস করুন, তবে এর জন্য যেন লেখা অস্পষ্ট বা অসুন্দর না হয়।

* মাথা খাটিয়ে, যৌক্তিক তথ্য দিয়ে নিজের মতো করে বানিয়ে লেখার অভ্যাস করুন। সব প্রশ্নই কমন আসবে, এমন আশা করবেন না।

* একই মানের এক প্রশ্নের উত্তর দুই পৃষ্ঠায়, আরেক প্রশ্নের উত্তর এক পৃষ্ঠায়, এমন যেন না হয়। উত্তরের ধারাবাহিকতা ঠিক রাখার চেষ্টা করুন।

* প্রতিটি নতুন প্রশ্নের উত্তর ডান দিকের পাতা থেকে শুরু করতে পারেন (প্রথম প্রশ্নটা বাদে)।

* কালো ও নীল কালির কলম ব্যবহার করবেন, সঙ্গে পেনসিলও রাখবেন।

* চার্ট, সারণি, মানচিত্র ব্যবহার করবেন এবং যেকোনো সমীক্ষার সর্বশেষ তথ্য ব্যবহার করবেন।

* যেকোনো প্রশ্ন ভূমিকা, মূল বিষয়বস্তু ও উপসংহার আকারে প্যারা করে লিখবেন।

কী কী পড়বেন:

*সিলেবাসটা ভালোভাবে পড়বেন, বিশেষ করে বাংলাদেশের ভূ-প্রকৃতি (টারশিয়ারি যুগের পাহাড়সমূহ, বিভিন্ন সোপান এবং সাম্প্রতিক কালের প্লাবন সমভূমি), জলবায়ু ও আয়তন বিষয়গুলোর স্বচ্ছ ধারণা রাখতে হবে।

* ভূ-কৌশলগত অবস্থান (দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের কৌশলগত অবস্থান যেমন—বঙ্গোপসাগর, সেন্ট মার্টিন দ্বীপ, সোনাদিয়া গভীর সমুদ্র বন্দর এবং ভারতের সঙ্গে সীমান্তবর্তী জেলাগুলোর বিভিন্ন করিডর ও ট্রানজিট সম্পর্কে ধারণা রাখবেন।

* জিডিপি, ফরেন ইনভেস্টমেন্ট, পার ক্যাপিটা ইনকাম, রেমিট্যান্স ও জিএনপি নিয়ে গত পাঁচ বছরের একটি তালিকা তৈরি করে মুখস্থ করবেন। এর ফলে উন্নয়ন ও অগ্রগতি সম্পর্কিত প্রশ্নের উত্তরে সুযোগ বুঝে দরকারি তথ্যজুড়ে দিতে পারবেন।

* সমাজব্যবস্থা, রাজনৈতিক দল, এ ছাড়া সরকারের নীতিনির্ধারণ, ভিশন-মিশন (রূপকল্প-২০২১, ভিশন-২০৪১ প্রত্যাশা ও চ্যালেঞ্জ), ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ সম্পর্কে বিশদ জানার চেষ্টা করবেন ।

* তৈরি পোশাক নিয়ে বিস্তর জানবেন, যেমন—অর্থনীতিতে অবদানসহ এই শিল্পের ভবিষ্যৎ ও করণীয়।

* বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিসহ সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন সংস্থার উক্তিসহ আমাদের গর্বের বিষয়গুলো নোট করে ব্যবহার করতে পারেন।

* বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি সংবিধানের অনুচ্ছেদ-২৫ (রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত, চীন ও মিয়ানমারের সম্পর্ক; মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, রাশিয়া ও আমেরিকার সঙ্গে সম্পর্ক) বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা রাখা জরুরি।

* ইতিহাস (১৯০৫-১৯৪৭), বঙ্গভঙ্গ ও স্বাধীনতা (১৯৪৭-১৯৭১) সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ও সাল জানা থাকতে হবে। ভাষা আন্দোলন নিয়ে লেখার জন্য ১৯৫২ সালের পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে বাংলা ও অন্যান্য ভাষাভাষী লোকজনের একটা পরিসংখ্যান প্রস্তুত করে মুখস্থ করবেন। এর সঙ্গে ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বিভিন্ন দল ও তাদের প্রাপ্ত আসনসংখ্যা নিয়েও চার্ট তৈরি করতে পারেন। এ ছাড়া স্বাধীনতার ঘোষণা ও ৭ই মার্চের ভাষণ পড়লে মুক্তিযুদ্ধসংশ্লিষ্ট প্রায় প্রশ্নের উত্তরে সেগুলো উক্তি হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

* বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন, মতাদর্শ ও অবদান ভালোভাবে পড়বেন। এ ক্ষেত্রে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ‘আমার দেখা নয়াচীন’ বই দুটি অবশ্যপাঠ্য।

* বাংলাদেশের সংবিধান যেমন—প্রজাতন্ত্র অনুচ্ছেদ (১-৭), রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি ও মৌলিক অধিকার; এ ছাড়া নির্বাহী বিভাগ, আইনসভা, বিচার বিভাগ ও নির্বাচন কমিশনের অনুচ্ছেদ-১১৮, ১১৯, ১২১, ১২২, ১২৫, ১২৬ পড়বেন। এর সঙ্গে সংবিধান সংশোধন (১৪২) ও একাদশ ভাগের অনুচ্ছেদ ১৪৫, ১৪৫ (ক), ১৪৭, ১৪৮, ১৫০ ভালোভাবে পড়বেন।

* সংবিধানকে রেফারেন্স হিসেবে ব্যবহারের চেষ্টা করবেন, যেমন—পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য প্রসঙ্গে সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১৮ (ক) ব্যবহার করবেন। নারীর অধিকার বা ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে ২৮ (২), উপজাতি ও নৃগোষ্ঠী সম্পর্কিত প্রশ্নে ২৩ (ক) ব্যবহার করবেন।

* সংবিধানের তফসিল ৫ম, ৬ষ্ঠ, ৭ম অবশ্যই পড়বেন। এর সঙ্গে বিভিন্ন সময়ের সংশোধনীগুলো জেনে যাবেন।

সহায়ক বই ও অন্যান্য:

১. বাজারের প্রচলিত প্রথম সারির প্রস্তুতিমূলক বই
২. বাংলাদেশের ইতিহাস (১৯০৫-১৯৭১) — ড. আবু মো. দেলোয়ার হোসেন
৩. নাগরিকদের জানা ভালো — বিচারপতি হাবিবুর রহমান
৪. নবম-দশম শ্রেণির পাঠ্য বই : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়
৫. অর্থনৈতিক সমীক্ষা
৬. বাংলাদেশের সংবিধান — আরিফ খান
৭. দুই-তিনটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ও সম্পাদকীয় কলাম নিয়মিত পড়বেন
৮. বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য নেবেন।

আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি:

আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি অংশে ভালো করতে হলে তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপনে কৌশলী হতে হবে। চলমান বিশ্বের নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এবং বাংলাদেশের সঙ্গে বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটের বিভিন্ন বিষয়ে আপডেট থাকতে হবে। অনলাইনের এই যুগে এসব তথ্য পাওয়া কঠিন কিছু না।

কৌশলগত বিষয়:

* ১৮০ মিনিটে ১০০ নম্বরের উত্তর করতে হবে। অর্থাৎ প্রতি ১ নম্বরের জন্য ১.৮ মিনিট বরাদ্দ।

* সিলেবাসের প্রতিটি টপিক সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা রাখবেন এবং বিগত সালের প্রশ্নগুলো ভালোভাবে পড়বেন। তাহলে প্রশ্নের ধরন বুঝতে সুবিধা হবে।

* কোনো বিষয় পড়ার সময় মানচিত্রও (প্রযোজ্য হলে) দেখে নেবেন।

* প্রশ্নপত্র থাকে তিন ভাগে : Conceptual Issues-এ ১০টি সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর করতে হবে, সময় ৭২ মিনিট। Empirical Issues-এ তিনটি ব্যাখ্যামূলক প্রশ্নের উত্তর করতে হবে, সময় ৮১ মিনিট। Problem Solving-এর জন্য সময় পাওয়া যাবে ২৭ মিনিট।

* উত্তরপত্রে চার্ট, ম্যাপ, বেশি বেশি তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার করবেন। অতিরঞ্জিত কোনো তথ্য দিয়ে সময় নষ্ট করবেন না।

* বিভিন্ন সংস্থার ওয়েবসাইট, দেশি-বিদেশি জার্নাল, সম্পাদকীয় কলামের রেফারেন্স দেবেন।

কী কী পড়বেন:

Conceptual Issues : আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও আন্তর্জাতিক রাজনীতির পারস্পরিক বিষয়গুলো থেকে এখানে প্রশ্ন আসে। রাষ্ট্রের প্রকৃতি, আধুনিক রাষ্ট্রব্যবস্থা, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, জাতি-রাষ্ট্র, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব, ক্ষমতার ভারসাম্য, জাতীয়তাবাদ, অস্ত্র, সন্ত্রাসবাদ, উপনিবেশবাদ, বিশ্বায়ন ও বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ ভালোভাবে জানতে হবে। এখানে অনেক সময় সংজ্ঞা চাওয়া হয়। তাই কি-ওয়ার্ডগুলো মাথায় রাখবেন, সঙ্গে কোটেশনও মুখস্থ রাখতে পারেন। আর পার্থক্য চাওয়া হলে ছক আকারে উপস্থাপন করবেন।

* Empirical Issues : সব প্রশ্নের উত্তর বিশ্লেষণধর্মী হতে হবে। এখানে ম্যাপ ব্যবহার ও চিত্রনির্ভর উপস্থাপনার চেষ্টা করবেন, এতে ভালো নম্বর আসবে। জাতিসংঘ ও তার বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন, কার্যাবলিসহ আন্তর্জাতিকভাবে গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগ, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং বিশ্বের প্রধান প্রধান সমস্যা ও দ্বন্দ্ব, বিশ্ববাণিজ্য, উন্নয়ন, বিনিয়োগসহ চলমান গুরুত্বপূর্ণ সমস্যাগুলো ভালোভাবে পড়বেন। এ ছাড়া মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ এশিয়া, দূরপ্রাচ্য, দক্ষিণ চীন সাগর, ভূমধ্যসাগর এবং বিভিন্ন আঞ্চলিক ও সামরিক জোট, ইইউ, রাশিয়া, চীন, আমেরিকা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা থাকলে উত্তর করা সহজ হবে।

* Problem Solving : বাংলাদেশ, ভারত, চীন, মিয়ানমার, পাকিস্তান—এসব দেশের মধ্যকার সম্পর্ক বা সমস্যা সম্পর্কিত প্রশ্ন বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আন্তর্জাতিক বাণিজ্য, বৈদেশিক সাহায্য, বৈশ্বিক পরিবর্তন, জলবায়ু পরিবর্তন, পরিবেশদূষণ, বৈশ্বিক অস্থির-যুদ্ধাবস্থা ও আন্তর্জাতিক রাজনীতি থেকেও প্রশ্ন আসতে পারে। এ ক্ষেত্রে সমস্যার ধরন, বিশেষজ্ঞদের মতামত ও নিজস্ব মতামত তুলে ধরবেন। মনে রাখবেন, আপনার উত্তর হবে সমস্যার সমাধানমূলক। তাই যথাযথ তথ্য-উপাত্ত ও যুক্তি দিয়েই সমাধান টানতে হবে।

সহায়ক বই ও অন্যান্য:

১. বাজারের প্রচলিত প্রথম সারির প্রস্তুতিমূলক বই
২. আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, সংগঠন ও পররাষ্ট্রনীতি (শাহ্ মো. আব্দুল হাই)
৩. বিভিন্ন সংস্থার ওয়েবসাইট, দেশি-বিদেশি জার্নাল, দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট, দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস, জিনহুয়া নিউজ এজেন্সির খবর ও নিবন্ধগুলো অনলাইনে নিয়মিত পড়তে পারেন।
৪. বিশ্বরাজনীতির ১০০ বছর (তারেক শামসুর রেহমান)
৫. নয়া বিশ্বব্যবস্থা ও সমকালীন আন্তর্জাতিক রাজনীতি (তারেক শামসুর রেহমান)।

বিসিএস লিখিত প্রস্তুতিঃ বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক ছাড়া আরও পড়ুনঃ

ফেইসবুকে আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেইজ ও অফিসিয়াল গ্রুপের সাথে যুক্ত থাকুন। ইউটিউবে পড়াশুনার ভিডিও পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন। আপডেট পেতে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেল যোগ দিতে পারেন। আমাদের সাইট থেকে কপি হয়না তাই পোস্টটি শেয়ার করে নিজের টাইমলাইনে রাখতে পারেন অথবা পিডিএফ আইকনে ক্লিক করে ডাউনলোড ও করে নিতে পারেন।