ক্রিপ্টোকারেন্সি’ বা ভার্চুয়াল মুদ্রা সমাচার

Content Protection by DMCA.com

বিসিএস ও ব্যাংক প্রস্তুতি
কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি
ক্রিপ্টোকারেন্সি’ বা ভার্চুয়াল মুদ্রা সমাচার

ক্রিপ্টোকারেন্সি’ বা ভার্চুয়াল মুদ্রাকে বলা হয় ‘অস্থির ডিজিটাল মুদ্রা”।

👉 মূলত অনলাইনভিত্তিক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ভার্চুয়াল মুদ্রায় অর্থমূল্য পরিশোধ ও নিষ্পত্তি সংঘটিত হয়

👉 বিটকয়েন, ইথারিয়াম, রিপল ইত্যাদি)

👉 ক্রিপ্টোকারেন্সির যাত্রা শুরু ২০০৮ সালে সাতোশিনাকামোতো নামে একজন জাপানিজের হাত ধরে বিটকয়েন প্রচলনের মাধ্যমে

👉 ইন্টারনেটের মাধ্যমে লেনদেন হওয়া ভার্চুয়াল মুদ্রা বা ক্রিপ্টোকারেন্সির সংখ্যা এখন আট হাজারের বেশি।
এগুলোর মধ্যে বিটকয়েন সবচেয়ে বেশি পরিচিত।

👉 ১ বিটকয়েনের বর্তমান দর ৩৩ হাজার ডলারের বেশি

👉 ক্রিপ্টোকারেন্সিতে লেনদেনের ফলে বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন ১৯৪৭, সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯ ও মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২- এর আওতায় অপরাধ হতে পারে।

👉 ২০০৮ সালে এই মুদ্রা উদ্ভাবনের পর বিশ্বের কোনো আইনগত কর্তৃপক্ষ এই মুদ্রাকে স্বীকৃতি দেয়নি

👉 কোনো ভার্চুয়াল মুদ্রা/ক্রিপ্টোকারেন্সি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃকও অনুমোদিত নয়।

ক্রিপ্টোকারেন্সি’ বা ভার্চুয়াল মুদ্রা সমাচার ছাড়া আরও পড়ুনঃ

ফেইসবুকে আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেইজ ও অফিসিয়াল গ্রুপের সাথে যুক্ত থাকুন। ইউটিউবে পড়াশুনার ভিডিও পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন। আমাদের সাইট থেকে কপি হয়না তাই পোস্টটি শেয়ার করে নিজের টাইমলাইনে রাখতে পারেন।