আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদান

Content Protection by DMCA.com

আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদান

আমরা পত্রিকা, বেতার, টেলিভিশন ও ইন্টারনেট থেকে প্রতিদিন আবহাওয়ার সংবাদ সংগ্রহ করে থাকি। আবহাওয়া মানুষের দৈনন্দিন কর্মকাণ্ডে প্রভাব বিস্তার করে। বিশ্বের প্রত্যেকটি দেশের আবহাওয়া অফিস এ সংক্রান্ত উপাত্ত ও তথ্য প্রচার মাধ্যমে প্রতিদিন সরবরাহ করছে।

আবহাওয়া অফিসগুলোতে দিনের পর দিন আবহাওয়ার বিভিন্ন উপাদান পর্যবেক্ষণ করে জলবায়ু সম্পর্কে ধারণা করা হয়। কোনো স্থানের আবহাওয়ার উপাদানগুলো নিত্য পরিবর্তনশীল। আবার পৃথিবীর সব স্থানের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য একরকম নয়। কোনো একটি নির্দিষ্ট স্থানের বায়ুর তাপ, চাপ, আর্দ্রতা, মেঘাচ্ছন্নতা, বৃষ্টিপাত ও বায়ুপ্রবাহের দৈনন্দিন সামগ্রিক অবস্থাকে সেই দিনের আবহাওয়া বলে।

কোনো একটি অঞ্চলের সাধারণত ৩০-৪০ বছরের গড় আবহাওয়ার অবস্থাকে জলবায়ু বলে। কাজেই জলবায়ু হলো কোনো একটি অঞ্চলের অনেক দিনের বায়ুমণ্ডলের নিম্নস্তরের সামগ্রিক অবস্থা। আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদানগুলো হলো বায়ুর তাপ, বায়ুর চাপ, বায়ুপ্রবাহ, বায়ুর আর্দ্রতা ও বারিপাত। [38তম বিসিএস প্রিলিমিনারি]

জলবায়ুর নিয়ামক (Factors of Climate):
পৃথিবীর সব অঞ্চলের জলবায়ু একই রকম নয়। এর কোনো অঞ্চল উষ্ণ এবং কোনো অঞ্চল শীতল। আবার কোনো স্থান বৃষ্টিবহুল এবং কোনো স্থান বৃষ্টিহীন। কিছু ভৌগোলিক বিষয়ের পার্থক্যের কারণে স্থানভেদে জলবায়ুর এরকম পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। এই বিষয়গুলোকে জলবায়ুর নিয়ামক বলে।

বিভিন্ন নিয়ামকের বিবরণ ও জলবায়ুর উপাদানের উপর তাদের প্রভাব বর্ণনা করা হলো:

১। অক্ষাংশ (Latitude): সূর্যকিরণের মাত্রা অক্ষাংশভেদে বিভিন্ন রকম হয়। নিরক্ষরেখার উপর সারা বছর সূর্য লম্বভাবে কিরণ দেয়। আর নিরক্ষরেখা থেকে যতই উত্তর বা দক্ষিণে যাওয়া যায়, সূর্যকিরণ তির্যকভাবে পড়তে থাকে। এর ফলে নিরক্ষরেখা থেকে উত্তর ও দক্ষিণ উভয় মেরুর দিকে তাপমাত্রা ক্রমশ কমতে থাকে।

২। উচ্চতা (Altitude): সমুদ্র সমতল থেকে যতই উপরে ওঠা যায়, উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বায়ুমণ্ডলীয় তাপমাত্রা ততই হ্রাস পায়। সাধারণত প্রতি ১,০০ মিটার উচ্চতায় প্রায় ৬ সেলসিয়াস তাপমাত্রা হ্রাস পায়। এ উচ্চতার পার্থক্যের কারণে দুই জায়গা একই অক্ষাংশে অবস্থিত হওয়া সত্ত্বেও একটি অপরটির চেয়ে ভিন্ন জলবায়ু সম্পন্ন হয়। যেমন- দিনাজপুর ও শিলং একই অক্ষাংশে অবস্থিত হওয়া সত্ত্বেও শুধু উচ্চতার তারতম্যের জন্য এদের জলবায়ু ভিন্ন রকম। এর উচ্চতা বেশি হওয়াতে শিলং-এ দিনাজপুরের চেয়ে তাপমাত্রা কম হয়।

৩। সমুদ্র থেকে দুরত্ব (Distance from the sea): জলভাগের অবস্থান কোনো এলাকার জলবায়ুকে মৃদুভাবাপন্ন করে। যেমন- কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, পটুয়াখালি সমুদ্র উপকূলে অবস্থিত হওয়ার কারণে এখানকার জলবায়ু রাজশাহীর তুলনায় বেশ মৃদুভাবাপন্ন। সমুদ্র নিকটবর্তী এলাকার তাপমাত্রায় শীত-গ্রীষ্ম তেমন পার্থক্য হয় না। এ ধরনের জলবায়ুকে সমভাবাপন্ন জলবায়ু বলে। কিন্তু সমুদ্র উপকূল থেকে দূরের এলাকায় শীত-গ্রীষ্ম উভয়ই চরম হয়। কারণ স্থলভাগ জলভাগ অপেক্ষা যেমন দ্রুত উষ্ণ হয়, আবার দ্রুত ঠান্ডাও হয়। এজন্য গ্রীষ্মকালে মহাদেশের অভ্যন্তরভাগের এলাকা অত্যন্তউত্তপ্ত থাকে, আবার শীতকালে প্রচণ্ড শীত অনুভূত হয়। এ ধরনের জলবায়ুকে মহাদেশীয় বা চরমভাবাপন্ন জলবায়ু বলে।

৪। বায়ুপ্রবাহ (Wind movement): বায়ুপ্রবাহ কোনো জায়গার জলবায়ুর উপরে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। জলীয়বাষ্পপূর্ণ বায়ু কোনো এলাকার উপর দিয়ে প্রবাহিত হলে সে এলাকায় প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়। যেমন- বাংলাদেশে বর্ষাকালে প্রচুর জলীয়বাষ্পপূর্ণ মৌসুমি বায়ু প্রবাহিত হওয়ায় প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়। আবার শীতকালে বাংলাদেশের উপর দিয়ে শুষ্ক মহাদেশীয় বায়ু প্রবাহিত হওয়ার কারণে বৃষ্টিপাত হয় না বললেই চলে।

৫। সমুদ্রস্রোত (Ocean current): শীতল বা উষ্ণ সমুদ্রস্রোতের প্রভাবে উপকূল সংলগ্ন এলাকার বায়ু ঠান্ডা বা উষ্ণ হয়। যেমন- উষ্ণ উপসাগরীয় স্রোতের প্রভাবে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলবর্তী এলাকার উষ্ণতা বৃদ্ধি পায়। আবার শীতল ল্যাব্রাডর স্রোত উত্তর আমেরিকার পূর্ব উপকূলকে শীতল রাখে।

৬। পর্বতের অবস্থান (Location of the mountain): উচ্চ পার্বত্যময় এলাকা বায়ুপ্রবাহের পথে বাধা হলে এর প্রভাব জলবায়ুর উপর পরিলক্ষিত হয়। যেমন- মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উত্তরে আড়াআড়িভাবে অবস্থিত হিমালয় পর্বতে বাধা পাওয়ায় বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়। অপরদিকে শীতকালে মধ্য এশিয়ার শীতল বায়ু হিমালয় অতিক্রম করতে পারে না। তাই ভারতীয় উপমহাদেশের জলবায়ু ইউরোপের মতো তত শীতল হয় না।

৭। ভূমির ঢাল (Slope of land): সূর্যকিরণ উঁচুভূমির ঢাল বরাবর লম্বভাবে পতিত হলে সেখানকার বায়ু এবং ভূমি বেশি উত্তপ্ত হয়। কিন্তু ঢালের বিপরীত দিকে সূর্যকিরণ কিছুটা তির্যকভাবে পড়ে বা কখনো সূর্যালোক খুব কম পায় ফলে বায়ু শীতল হয়।

৮। মৃত্তিকার গঠন (Composition of the soil): মৃত্তিকার গঠন বা বুনট সূর্যতাপ সংরক্ষণে বিশেষ ভূমিকা রাখে। প্রস্তর বা বালুকাময় মৃত্তিকার তাপ সংরক্ষণ ক্ষমতা কম। এজন্য তা দ্রুত উত্তপ্ত এবং দ্রুত শীতল হয়। যেমন- মরুভূমিতে দিনে প্রচণ্ড গরম এবং রাতে প্রচণ্ড ঠান্ডা।

৯। বনভূমির অবস্থান (Location of forest): গাছপালা প্রস্বেদন (Transpiration) ও বাষ্পীভবনের (Evaporation) সাহায্যে বায়ু জলীয়বাষ্পপূর্ণ এবং ঘনীভূত হয়ে বৃষ্টিপাত ঘটায়। তাছাড়া বনভূমি ঝড়-তুফান, সাইক্লোনের গতিপথে বাধা দিয়ে এর শক্তি কমিয়ে দেয়। বনভূমিতে সূর্যালোক মাটিতে পৌঁছতে পারে না, ফলে সেখানকার বায়ু তুলনামূলকভাবে শীতল হয়।

আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদান সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন ও উত্তরঃ

১. মেটিওরোলজি কি? -আবহাওয়া সম্পর্কীয় বিজ্ঞান।

২. আবহাওয়া ও জলবায়ু বলতে কি বোঝায়? -প্রতিদিনের গড় তাপ, চাপ, বায়ুপ্রবাহ, আর্দ্রতা ও বারিপাতের তথ্যের ভিত্তিতে কোনো এলাকার যে অবস্থা প্রকাশ করে তাকেই আবহাওয়া বলে। সাধারণত ৩০ থেকে ৪০ বছরের গড় আবহাওয়ার অবস্থাকে জলবায়ু বলে।

৩. আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদান কি কি? -আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদান –

ক. বায়ুর তাপ
খ. বায়ুর চাপ
গ. বায়ুপ্রবাহ
ঘ. বায়ুর আদ্রতা
ঙ. বারিপাত

৪. জলবায়ু কোন কোন নিয়ামক দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়? -আবহাওয়া ও জলবায়ুর উপাদানসমূহ নিম্নলিখিত নিয়ামক দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।

  • অক্ষাংশ
  • সমুদ্রস্রোত
  • উচ্চতা
  • ভূমির ঢাল
  • মৃত্তিকা
  • বায়ুপ্রবাহ
  • সমুদ্র থেকে দূরত্ব
  • পর্বতের অবস্থান
  • ভূমির বন্ধুরতা
  • বনভূমির অবস্থান

৫. সমভাবাপন্ন ও চরমভাবাপন্ন জলবায়ু বলতে কি বুঝায়? -সমুদ্র নিকটবর্তী এলাকায় শীত গ্রীষ্ম এবং দিনরাত্রির তাপমাত্রার তেমন পার্থক্য হয় না । এ ধরনের জলবায়ুকে সমভাবাপন্ন জলবায়ু বলা হয়।

৬. চরমভাবাপন্ন বা মহাদেশীয় জলবায়ু কি? -সমুদ্র উপকূল থেকে দূরের এলাকায় শীত গ্রীষ্ম উভয়ই চরম হয়। কারণ স্থলভাগ জলভাগ অপেক্ষা যেমন দ্রুত উষ্ণ হয় আবার দ্রুত ঠান্ডা হয়। এজন্য গ্রীষ্মকালে মহাদেশের অভ্যন্তরভাগের এলাকা অত্যন্ত উত্তপ্ত থাকে, আবার শীতকালে প্রচন্ড শীত অনুভূত হয়। এ ধরণের জলবায়ুকে মহাদেশীয় বা চরমভাবাপন্ন জলবায়ু বলে।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর:

১. আবহাওয়া সম্পর্কীয় বিজ্ঞান – মেটিওরোলজি
২. কোন স্থানের জলবায়ু কিসের উপর নির্ভর করে – (পাবলিক সার্ভিস সহকারী পরিচালক:৯৮) -সমুদ্রপৃষ্ঠ হতে উচ্চতা
৩. জলবায়ু নির্নয়ে কোনটি প্রয়োজন? (যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক) -তুষার রেখা

বায়ুর তাপ:

১. বায়ুর তাপের প্রধান উৎস কি? -বায়ুর তাপের প্রধান উৎস সূর্য।

২. উচ্চতার সাথে বায়ুমন্ডলের তাপমাত্রার পার্থক্য কি? -উচ্চতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বায়ুমন্ডলীয় তাপমাত্রা হ্রাস পায়। সাধারণত প্রতি ১০০০মি. উচ্চতায় ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা হ্রাস পায়।

৩. কোন প্রক্রিয়ায় ভূ-পৃষ্ঠ উত্তপ্ত হয়? -পরিবহন।

৪. কোন প্রক্রিয়ায় পানি ও বায়ুসন্ডলের উত্তাপের বিনিময় হয়? -পরিচলন।

৫. কোন প্রক্রিয়ায় পৃথিবী তাপ হারিয়ে শীতল হয়? -বিকিরণ।

৬. বায়ুর শক্তির উৎস কি? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক:৯৫) -সূর্য

৭. সূর্য থেকে পৃথিবীতে কোন প্রক্রিয়ায় তাপ আসে? (মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহকারী প্রধান শিক্ষক:০৩) -বিকিরণ

আরও পড়ুনঃ

ফেইসবুকে আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেইজ ও অফিসিয়াল গ্রুপের সাথে যুক্ত থাকুন। ইউটিউবে পড়াশুনার ভিডিও পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন।